বেনেডিক্ট কাম্বারব্যাচের জন্মদিনে ১০টি ট্রিভিয়া !
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

আধুনিক শার্লক-খ্যাত বেনেডিক্ট কাম্বারব্যাচের আজ ৩৮তম জন্মদিন । বিনোদন জগতকে মোহাবিষ্ট করে রাখা এই সুপার কুল ডিটেকটিভের জানা-অজানা কিছু ট্রিভিয়া নিয়ে হাজির হয়েছি আজ ।

বিস্ময়কর অভিনয় গুণসম্পন্ন এই দক্ষ অভিনেতা শুধু যে শার্লকে অভিনয় করে গোয়েন্দা কাহিনী নির্ভর সিরিয়ালকে ভিন্ন উচ্চতায় নিয়ে গেছেন তাই নয় নিজে প্রায় এককভাবে চাটুকদার এক গুরু এক আইকনে পরিণত হয়েছেন । শুধু তাই নয় নিজের সেরাটা এখনো বিস্ফোরণের জন্য অপেক্ষা করছে বলে মনে করেন এই অবিশ্বাস্য রকমের মনোমুগ্ধকর অভিনেতা ।

পুরো নাম বেনেডিক্ট টিমোথি কার্লটন কাম্বারব্যাচ, আজকে ৩৮ বছর বয়সে পা দিয়েছেন । আসুন জেনে নেই প্রিয় এই অভিনেতা সম্পর্কে ১০টি ট্রিভিয়া –
 

১০.     যদিও তার একনিষ্ঠ ভক্তরা নিজেদের ‘কাম্বারবিচেস’ বলে সম্বোধন করতে পছন্দ করেন, কিন্তু বেনেডিক্টের এরকম ‘নাম’ পছন্দ নয় । তার মতে এটা নারীবাদকে ছুরিকাহত করে, এরচেয়ে বরং ‘কাম্বারপিপল’ বেশ ভালো ।

০৯. বেনেডিক্ট প্রবল উদ্যমশীল এক মন্ত্রে দীক্ষিত এবং সে অনুযায়ীই জীবন ধারণ করেন, “কোন কিছুই ইম্পসিবল (Impossible) নয় । শব্দটি নিজেই বলছে ‘আমি সম্ভব (I’m possible)’”

০৮. বিশ্বের সবচেয়ে দুর্দান্ত, হটেস্ট অভিনেতা হওয়া স্বত্বেও অন্যান্য বিখ্যাত তারকাদের সাথে সাক্ষাতের সময় নারভাস হয়ে পড়েন তিনি ।

০৭. বেনেডিক্ট তারকা না হওয়া থেকে প্রায় বেঁচে গেছে । উকিল হবার প্রশিক্ষণ নেবার চিন্তা নিয়ে অনেক দিন ঘুরেছেন, এমনকি নিউরোসার্জন হবার বাসনা তার এখনো বলবৎ ।

০৬. অভিনয় প্রশংসার শীর্ষে উঠে নানারকম অর্জনের পরেও তিনি সন্তুষ্ট নয়, এক বিশাল হতাশা তার মধ্যে কাজ করে । এবং সেটা হল ৩২ বছর বয়সেও তিনি বাবা হতে পারেননি । তার মতে ছেলেমেয়ের বাবা হতে পারলে সেটা তার জন্য অনেক বড় মাপের এক অর্জন হত ।

০৫. মাত্র এক সপ্তাহের চেষ্টাতেই তিনি ভায়োলিন বাজানো শিখে গেছেন ।

০৪. জিসিএসই (জেনারেল সার্টিফিকেট অফ সেকেন্ডারি এজুকেশন) তে মাত্রাতিরিক্ত ভালো ফলাফলের পরেও এ-লেভেলে ভালো করতে পারেননি, পেছনের কারণ ‘গাঁজা, মেয়ে সহ অনেক অন্যান্য জিনিসপত্র’ !

০৩. প্রিয় মুভি ঘোস্টবাস্টার্স । তিনি অ্যামেরিকান ড্রামা ঘরানারও অনেক ভক্ত, ‘দ্য ওয়্যার’ নামক টিভি সিরিজটির কথাও উল্লেখ করতে ভোলেনি ।

০২. শার্লক চরিত্রের জন্য তিনি ওজন কমিয়েছিলেন । চুলের রঙ্গও কালো করেছিলেন, এমনিতে তার চুল লালচে বাদামী রঙ্গের ।

০১. জীবনের সবচেয়ে বিব্রতকর মুহূর্তের কথা স্মরণ করতে গিয়ে শৈশবের একটা ঘটনা বলেন, “আমি যখন ছয় বছরের ছিলাম, একটা গ্রিক বাজারে আমি একটা বোলতার কামড় খেয়েছিলাম । একজন বিধবা মহিলা তখন আমার প্যান্ট নামিয়ে, চ্যাঙদোলা করে উল্টিয়ে ধরে আমার পাছায় পেয়াজের রস ঘষে দিয়েছিল !” 

 

সূত্র-এক্সপ্রেসডটকো

এই পোস্টটিতে ২ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    আরে জোশ তো। অনেকগুলো তথ্য জানা গেল… 

  2. ডঃ জেকিল says:

    Benedict asholei josh ekjon manush. Sherlock dekhar time a mone hoy jolojento sherlock ghure beracche!

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন