ভালবাসা দিবসের নাটক ও শর্টফিল্ম সমূহ আমার ছকে!
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0
এ বছরে আমার দেখা ভালবাসা দিবসের নাটক ও শর্টফিল্ম সমূহ আমার ছকে-
আমাকে খুব সম্মানিত কেউ একজন গুরুজন একদা বলেছিলেন শিল্পের আসলে সমালোচনা করতে নেই, সবই তো শিল্প আর শিল্প মানেই সৃষ্টি। তাই ঠিক রিভিও শব্দ টা আমি নিতে বেশ কার্পণ্য বোধ করছি। আমি বলবো একটু গপ্প করছি। থাকেনা চা খেতে খেতে একজন সুভাকাংখি হয়ে দু’চারটা কথা বলার জন্য বলা সেরকম আর কি। আর ওসব রিভিও দেয়া আমার সাজেও না। যাইহোক, আসল কথায় আসি। এবারের ভ্যালেন্টাইনে একটি ব্যাপার লক্ষ্য করলাম, আসলে কয়েকটি ব্যাপারই লক্ষ্য করেছি তার ভেতর একটি হচ্ছে নির্মাতাদের কাজের পরিমাণ কমিয়ে দেয়া। এটাকে আসলে সাধুবাদ জানাবো নাকি জানাবো না তা নিয়ে একটু সংশয়ে আছি বটে। আরেকটা দেখলাম ছোট ছোট ছোট করে অনেকগুলা টুকরো টুকরো গল্প নিয়ে অনেক গুলা শর্ট ফিল্ম বানানো! যাইহোক, দেখেছি সবই তাই একটু এবার আসি চলুন একসাথে দেখি সবই।
১। আমার গল্পে তুমিঃ
মিজানুর রহমান আরিয়ান,The Director of Romance বলেন আর ভালোবাসার গল্পকথক বলেন দুই ভাবেই পরিচিত সবার কাছে বানিয়েছিলেন এবার তাহসান-মিথিলা ঊর্মিলা কে নিয়ে ভালবাসা দিবসের বিশেষ নাটক “আমার গল্পে তুমি” নাটক খানাকে এবারের ভ্যালেন্টাইনের বেস্ট কাজ বলবো। প্রথমত এই নাটকে আসলে কি ছিলো না? গল্প, মেকিং, মিউজিক, অভিনয় কিংবা কন্টেইনের কথাতেই আসুন সব কিছুকে পারফেক্টলি ব্যাল্যান্স করে নাটকটিকে দর্শকের সামনে নিয়ে আসা হয়েছে। মিথিলা প্রেমি মানুষ আমি তাই বলে আমি পারসেয়ালিটি করবো? তাতে কি আমাকে কেউ ছেড়ে কথা বলবে? আপনারা দেখলে নিজেরাই স্বীকার করবেন বলে আশা রাখি। মিথিলাকে এভাবে আমি এর আগে কখনো অভিনয় করতে দেখিনি আর নাটকের প্রধান আকর্ষণ বলতে আমি বলবো অবশ্যই ঊর্মিলা। তাহসান ভাই যে একজন ভ্যারাইটি অভিনেতা এ নাটক না দেখলে বুঝতাম না। একদম গভীরে যেয়ে বেকার জীবনের শুন্যতাকে ছুয়ে গায়ের লম দাড় করিয়ে দিলো আমার গল্পে তুমি সাথে সমসাময়িক একটা ম্যাসেজও দিয়ে গেলো সবাইকে। “বেঁচে থাকতে হবে তো, আত্মহত্যা কোনো সমাধান হতে পারেনা” সত্যি, অসাধারণ। তবে হ্যাঁ, অবশ্যই আমাকে খুঁত ধরতে হবে আর সে যদি ধরতেই হয় তবে বলবো নাটকের বাকগ্রাউন্ড মিউজিকের ক্ষেত্রে In A Relationship এর মিউজিক ইউজ করাতে আমার বেশ ইন্টেরেস্টিং লেগেছে কিন্তু ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক স্কোরের ক্ষেত্রে আরও যত্নবান হওয়া যেত। সে ক্ষেত্রে হয়তো আমাকেও ছুঁয়ে দিয়ে কাঁদিয়েও ফেলতে পারতো। সাজিদ ভাইয়ের কম্পোজিশনে নাটকে দুটি গান আছে ‘আমার গল্পে তুমি’ শিরোনামে যার একটি তাহসান ভাই আরেকটি মিথিলা আপু গেয়েছিলেন এবং দুটি গানই বরাবরের মত পছন্দের লিস্টে জায়গা করে নিয়েছে।

লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=w78vo2ef3U4&t=2052s

16602618_10210162290872557_3595816488204629120_n

২। শুনতে কি পাওঃ
আসফাক নিপুন পরিচালিত শুনতে কি পাও ছিলো মুলত A Tribute to GONE GIRL. চেনা পরিচিত তাহসান কে নাটকে একটু অন্যভাবে দেখানোর চেস্টা করা হয়েছিলো এবং অনেক ক্ষেত্রে পরিচালক সফলই বলবো। তিশা ও তাহসান অনস্ক্রিনে থাকলে নাটক এমনিতেই দাড়িয়ে যায় এবং এখানেও তাই হয়েছে। পুরোটা সময় জুড়ে একটা থ্রিলিং আমেজ এবং একদম লাস্টে যেয়ে টুইস্ট। হ্যাঁ, নিঃসন্দেহে একটা উপভোগ করার মত ড্রামা। মিউজিকও ছিলো আপ টু দ্যা মার্ক সাথে এলিটা আপুর গান। তবে হ্যাঁ, আমাদের নির্মাতা আসফাক নিপুনকে নাটকে আমি মিস করেছি। কেন করেছি সে বিবরণে যাবো না কিন্তু মিস করেছি। প্রতিটা পরিচালকের তো নিজের একটা ধারা থাকে। নিপুন ভাইয়া সম্ভবত সেটা ভাংতে চাচ্ছে তাই হয়তো এভাবে ফীল করেছি আমি। আশা করবো সামনে আসা কাজ গুলোতে সেটা পুষে যাবে। এই নাটকে সিনেমেটোগ্রাফির কাজ ছিলো প্রশংসনীয়, চান্সে নওয়াব চাটগা এর ভালো প্রমোশন করা হয়েছে দেখে মজা লেগেছে এবং গল্পটাই এমন যে নাটক কে টেনে নিয়ে গিয়েছে খুব সুন্দর ভাবে।
লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=fvonFsTL1zA&feature=youtu.be

 

16729312_10212291646784917_2008164509125006428_n

৩। হৃদকাহনঃ
রেদয়ান রনি পরিচালিত এবারের ভালবাসা দিবসের একটি বিশেষ নাটক ছিলো “হৃদকাহন”। এখানে ছিলো ইরেশ জাকের ও মিথিলা। সাথে ছিলো আরও শাওন, মিশু সাব্বির, নাভেল সহ প্রমুখ। গল্পটি বেশ মজার। অভিনয়ে সবাই ছিলো বেশ ভালো। কিন্তু কেমন যেন হুট করেই নাটকটি শেষ হয়ে গেলো। গল্পের মেকিং, অভিনয় ও পরিচালনার দিক থেকে বিবেচনা করলে অবশ্যই দেখার মত একটি নাটক এটি। আর নাটকে রয়েছে Studio 58 এর আরাফাত মহসিনের করা একটি সুন্দর গানও। শেষ পর্যন্ত যেয়ে হৃদকাহন হৃদে কিছু কথোপকথন করবেই তবে কি রেদয়ান রনি বলতে আমরা দর্শকরা অনেক বেশী আশা করে ফেলি সে আশাতে একটু নিরাশা দিতেই পারে নাটকটি সে দিক থেকে অবশ্যই রনি ভাইয়া সেটা মাথায় রেখে অন্তত হুট করে গল্প শেষ করে দিবেন না আর হ্যাঁ, কিছু নির্মাতাগণ মাস্টার পিস বানায় তাদের তাই মাস্টার পিস ছাড়া আর ভালো লাগেনা।
লিঙ্কঃ official link is not available yet but will be at http://www.popcornlive.tv/

 

Untitled

৪। বরষাঃ
অনিমেষ আইচ পরিচালিত তাহসান-ভাবনা অভিনীত এটা একটি শর্ট ফিল্ম। আমি আগেই বলেছি তাহসান খান একজন ভ্যারাইটি অভিনেতা। তাঁর ভেতর যে এক্টিং এর ভেরিয়েশন রয়েছে তা দেখতে হলে এই শর্ট ফিল্মটি দেখতে হবে। জুটি হিসেবে তাহসান এর সাথে ছিলেন ভাবনা। একটি মফস্বলের বৃষ্টি রাতের গল্প। গল্পের দিক থেকে বললে বলবো গল্পের প্লট তেমন স্ট্রং ছিলো না তবে মেকিং, অভিনয়ের দিক থেকে অনেক কিছু ছিলো। অনিমেষ দা তাঁর সুনিপুণ নির্মাণের হাত দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন এবং সাথে এও বুঝিয়ে দিয়েছেন সে অভিনেতাদের ভেতর থেকে অভিনয় বের করতে জানে। খুব ডিফেরেন্ট একটি কাজ এবং অবশ্যই ভালো লাগার মত একটি কাজ। শুধু গল্পটা যদি একটু স্ট্রং হতো জমে যেত।

লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=uihuMFWfz-g

16730650_1886204621609064_2120834096884877843_n

 

৫।সিনেমার মত প্রেমঃ
কাজল আরেফিন অমি পরিচালিত নিশো ও শখ এবং সিফাত ও শাওন অভিনীত নাটকটি বেশ মজার ছিলো। নির্মাতা হিসেবে অমি বরাবরই তেমন সিরিয়াস বিষয় নিয়ে কাজ করেন না কিন্তু তাঁর নাটকে গভীর ভাবে কিছু ম্যাসেজ দেয়া হয় যেটা আমি খুব উপভোগ করি। হিউমারের এর থেকে ভালো ইউটিলাইজেশন হতে পারেনা। বিগত কাজেও এর প্রমান পেয়েছি এবারো পেলাম। নাটকটি তে নিশো ও শখ রয়েছেন এবং অসাধারণ অভিনয় তো আছেই সাথে আরেকটা জুটি অভিনয়ে রয়েছে তা হচ্ছে শাওন এবং সিফাত। দুটি জুটিরই অভিনয় বেশ মজার এবং উপভোগ্য। নাটকটি আপনাকে আর যাইহোক বোর করবেনা। তবে হ্যাঁ, নাটকের এন্ডিং নিয়ে আমি ব্যাক্তিগত ভাবে খুশী না, কেন এমন এন্ডিং করা হলো তা নির্মাতা নিজেই বলতে পারবেন তবে আমার কাছে মনে হয়েছে দরকার ছিলো না এমন এন্ডিং এর। গল্পটি এমনিতেও দাড়িয়ে গিয়েছিলো। আর হ্যাঁ, নাটকে একটি মৌলিক গান খুব ডিমান্ডেবল ছিলো। আশা করি আগামিতে আরো ভালো কাজ পাবো।
লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=WUEQ_ovee60&t=4s

 

16711901_427493630922428_4977585525380447774_n

 

৬। PRAN FROOTO PRESENTS LOVE EXPRESS 2 SHORT FILMS DRAMAS:
I) তানিম রহমান অংশু এর পরিচালনায় ছিলো ৫ টি শর্ট ফিল্ম যার অভিনয়ে ছিলো সৌমিক, তাসনুভা, তাওসিফ, শাহতাজ, শামিম সরকার, তাসনুভা তিশা, নায়িম, স্পর্শীয়া, সিয়াম, সবনম ফারিয়া সহ অনেকেই। শর্ট ফিল্ম গুলোর মেকিং ভালো ছিলো কিন্তু গল্পের দিক থেকে ছিলো অনেক বেশী দুর্বল সাথে ছিলো ডাবিং এর প্রব্লেম। অনেক ক্ষেত্রে রয়েছে লাস্ট ক্রেডিট এর ক্ষেত্রে ভুল। অংশু ভাই বরাবরই খুব ভালো কাজ করেন কিন্তু এই শর্ট ফিল্ম গুলোর ক্ষেত্রে কেন এমন ঘটলো আমি ঠিক বুঝে উঠতে পারিনি। কিন্তু তবুও এই শর্ফিটল্ম গুলো ভাল লাগবে। সাথে রয়েছে অদিত দা এর সিগ্নেচার মিউজিক।
II) মুহাম্মাদ মোস্তফা কামাল রাজ এর পরিচালনায় ছিলো ৫ টি ড্রামা যার অভিনয়ে ছিলো তামিম মৃধা, শাওন, ইরেশ জাকের, পিয়া বিপাশা, এলেন সহ অনেকে। ড্রামা গুলোর ক্ষেত্রেও গল্পগুলো তেমন স্ট্রং না হলেও তুলনামুলক ভাবে মেকিং ও বাকী দিক বিবেচনা করে উঠিয়ে নিতে পেরেছে। তাই এগুলো কে দেখার লিস্টে রাখাই যেতে পারে।
এই প্রচেস্টা ভালো তবে আমি যা বুঝলাম এই ছোট ছোট করে এক সাথে অনেক গুলা কাজ করতে যেয়ে নির্মাতারা বরং ক্ষতিটাই করছেন। তার থেকে একটা করুন পারফেকশন দিয়ে করুন।

লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/channel/UCU-0QoRzMEhJGw2eN8Bw0jA/videos

16640977_1309038089159117_4060495355931968406_n

 

৭। পদ্মপাতাঃ
 
নাজমুল হুদা শাপলা পরিচালিত মিজান, শারলিন, নায়িম অভিনীত নাটক টি আমার কাছে বেশ ভালো লেগেছে। এই নাটকে সাহিত্তের গন্ধ আছে, আছে ক্লাসিকের সুগন্ধ তবে কিছুটা। হ্যাঁ, তিনজন অভিনেতাই এখানে বেশ ভালো অভিনেতা সে হিসেবে নাটকটি দেখে আরাম পাবেন এবং গল্পের দিক থেকেও বেশ ভালো গল্পে সাজানো সিমসাম টাইপ একটি নাটক তবে ভালো লাগবে। গতানুগতি থেকে একটু ভিন্ন দেখতে চাইলে এই নাটকটি একটি ভালো অপশন নির্দ্বিধায়।

লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=ofAvQqf_C9Y&t=2s

16729399_10211958877109575_8477484630595132875_n

 

৮। Closeup কাছে আসার offline গল্পঃ
প্রতি ভ্যালেন্টাইনে খুব জাকজমক ভাবে যে তিনটি নাটকের অপেক্ষায় আমরা থাকি তা হচ্ছে Closeup কাছে আসার গল্প। বিগ বাজেট, বিগ শো কিন্তু খুব এবং খুবই দুঃখের সাথে বলতে বাধ্য হচ্ছি এবারের এই পর্ব আমাকে যথেষ্ট বিরক্ত করেছে। দেখেন, আমি বরাবরই খুব পজেটিভ আলচনা করে অভ্যস্ত এমনকি আমি বলেওছি যে আমি রিভিও দিচ্ছিনা এবং বিগত দিনে আমার লিখা পড়ে অনেকে আমাকে বলেওছে যে এক তরফা ভাবে যেন আমি শুধু পজেটিভ মন্তব্য না দেই তবুও আমি পজেটিভিটিতেই বিশ্বাস করি। কিন্তু এবার তা সম্ভব হলো না। এবার আমি পজিটিভ এর সাথে নেগেটিভ দিকটাও তুলে ধরার চেস্টা করেছি। আর করেছি কারণ আমি এখন বিশ্বাস করি আমাদের বাংলা নাটকের দিন ফিরে আসছে ধীরে ধীরে। আমাদের নির্মাতারা ভালো নাটক বানাতে হবে এই ব্যাপারটা বুঝে গেছেন। এবং এখন নেগেটিভ হলে বলার যায়গাও সৃষ্টি হয়েছে আর সবথেকে ভালো লাগার জায়গা নির্মাতারা আমাদের কথা গুরুত্তের সাথেই শুনছেন। তা না হলে হয়তো সামনে আপনারাই বুঝবেন না কি ধরনের কাজ আমরা চাই বা কি ধরনের কাজ আপনাদের দর্শকদের দেয়া উচিত।
একটা কথা আছে ‘দর্শক যা চায় তাই তাদের দাও এ কথা যেমন সত্য তেমনি দর্শককেও বানিয়ে নিতে হয়ে এ কথাও কিন্তু সত্য।’ আপনারা কোনদিকে আগাবেন আপনাদের ব্যাপার। মাঝে মাঝে দর্শকের মন্তব্য গুলো পড়বেন তাতে অনেক কিছু বুঝবেন।
I) কেউ জানেনাঃ সম্ভবত Closeup কাছে আসার গল্পের একটি মাত্র গল্প যেটা মেকিং, অভিনয় ও সব দিক থেকে আমার ভালো লেগেছে। জোভান, নাদিয়া, মেহজাবিন, জাকি সহ অনেকেই ছিলেন অভিনয়ে এবং গল্পের প্লটে যে চিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে সেটা অবশ্যই ভালো লেগেছে। সম্পর্ক গুলোতে অনেক লুকোচুরির ভেতর নিজের ক্লাস স্ট্যাটাস লুকানো খুবই কমন একটা ব্যাপার এই দিকটা তুলে ধরা হয়েছে এ গল্পে সেটা নিঃসন্দেহে ভালো লেগেছে। মেহজাবিনের লুকেও যে একটা মেচুউর লুক আনা হয়েছে সেটাকেও বেশ উপভোগ করেছি। জোভান বরাবরের মতই ভালো অভিনয় করেছে। Studio 58 এর একটা গানও ছিলো আরাফাত মহসিনের করা, সব মিলিয়ে ভালো লেগেছে। বি প্রীতম এদিক থেকে অবশ্যই প্রশংসার দাবী রাখেন। এতো হাইপে নিজের জায়গা ঠিক রেখে কাজ করে যাওয়াও একটা বড় ব্যাপার।
লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=bsfeI0mCKQM&t=17s
II) মেঘ এনেছি ভেজাঃ সিয়াম আর সৌভিক বাদে এ নাটকে আমার কাছে আর কিছুই ভালো লাগেনি। দুঃখিত। গল্পে ছিলো মারাত্তক প্লট হোল, অভিনয়ে ছিলো মারাত্তক খাপছাড়া অবস্থা আর রবিন্দ্রনাথ কিংবা Elliot বা Yeats বলেন, ঠিক যায়নি। কাব্য করতে হলে চরিত্রের গভীরতা থাকতে হয়। না হলে খুবই মেকি লাগে সব। সাবিলা নুর কে নিয়ে ইদানিং অনেক কন্ট্রোভারসি শোনা গেলেও অভিনয়ের জায়গা থেকে সবাইকে থামিয়ে দেয়া একজন অভিনেতার সব থেকে বড় গুন। সে এখনো সবটা রপ্ত করতে পারেনি বলে আমার ধারনা হয়তো অবশ্যই পারবে এবং খুব শক্ত ভাবেই পারবে। আশা করি নেক্সটে ভালো কিছু আসবে। রুবায়েত মাহমুদ নির্দ্বিধায় একজন ভালো নির্মাতা তাঁর কাছ থেকে আমরা অবশ্যই ভালো কাজ আশা করি এবং করবো যা নাটকের মেকিং দেখলে আমরা সবাই মানতে রাজি আছি। তাই আসলে কি হয়েছিলো দর্শকের জায়গা থেকে আমরা বুঝবো না তেমনি ঠিক কেন ভালো লাগেনি তা নির্মাতার জায়গা থেকে হয়তো আপনাদের খারাপ লাগবে কিন্তু দিন শেষে বানাচ্ছেন তো আমাদের জন্যই। অপেক্ষায় থাকলাম ভালো গল্পে ভালো অভিনয়ে ভালো নির্মাণ দেখার।
লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=h0y38asyCXU
III) তোমার পিছু পিছুঃ মাবরুর রশিদ বান্নাহ ভাই, আমার একজন প্রিয় মানুষ, নির্মাতা। আমি জানিনা কেন এই ভ্যালেন্টাইন ডে তে তাঁর আলাদা কোনো কাজ ছিলো না আর কেনইবা তোমার পিছু পিছু তে এমন গল্পের মেকিং তাঁকে করতে হলো? ফুড ব্যাংকের কনসেপ্ট বা ফুড ব্লগ এর কনসেপ্ট নিয়ে নাটক বানিয়ে সেখানে আধুনিকতার ভেতর করপারেট ইমোশন ঢোকালে খুব চোখে লাগে । তাহসান ভাইয়াকে একদম অন্যভাবে উপস্থাপন করার চেস্টা কে সাধুবাদ জানাবো তবে ভালো লাগেনি একদম এবং মীম এর অভিনয়ের জায়গা এই নাটকে কতোটুকু ছিলো আমি জানিনা তবে যথেস্ট মেকি ছিলো। নির্মাতা বান্নাহ বলতে আমি যা বুঝি এটা তা কখনই ছিলো না এবং আমি যা বলছি তা বান্নাহ ভাইয়া বুঝবে বলে আশা রাখি। হয়তো বাঁধা ধরা ছকে নির্মাতাদের বেঁধে দিলে কাজের রেজাল্ট এমনই হয়।
আর হ্যাঁ, আমি বলছি বলেই বান্নাহ ভাই আবার আমার দেখা নির্মাতা বান্নাহ হয়ে মাস্টার পিস দিবে সে আশাও ব্যাক্ত করছি। তোমার পিছু পিছু অনেকের অনেক ভালো লেগেছে, কারো অনেক প্রিয় নাটকও হয়েছে কিন্তু আমি প্রচলিত ও প্রচারিত এর পার্থক্য এর জায়গা থেকে বললাম। ভালো কাজ আর প্রিয় কাজে পার্থক্য থাকে। যে ভালো ও বেস্ট কাজ বানানোর ক্ষমতা রাখে তাঁকে তাই বানানো উচিত। এবং সে তাই বানাবে ইনশাল্লাহ।

লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=XHMb_l_P7Bs&t=124s

16508098_1299885353390535_437763168402533521_n

লেখা শেষ করবো, হ্যাঁ এবার ভ্যালেন্টাইনে কাজ অনেক কম ছিলো তাঁর ভেতর একেকজন নির্মাতার টুকরো টুকরো করে করা কাজ কে আমি সাধুবাদ জানাতে পারছিনা। আপনারা কাজ করুন, কম করুন আর বেশী করুন সেটা আপনাদের ব্যাপার কিন্তু এখন আপনাদের দায়িত্ব বাংলা নাটককে এমন লেভেলে নিয়ে যাওয়ার যেখানে আমরা দর্শকরা যেন টিভি দেখতে বসে অন্তত পরিবারকে বলতে পারি চলো আমার দেশের নাটক দেখি। বাকিটা আপনারাই বুঝবেন। কারণ আমার এমন অনেক অপার বাংলার বন্ধু-বান্ধবিরাও আছেন যারা আমাদের দেশের নাটক দেখে নিয়মিত শুধু তারাই নয় সারা দুনিয়ার অনেক মানুষ আছেন যারা আমাদের দেশী নাটকের ভক্ত। তো? এক্সকিউজের জায়গা কই বলুন?
আর হ্যাঁ, অনেক ধন্যবাদ। আমার বিগত ছকে আঁকা নাটকের পোস্টে বলা কথা মানার জন্য। অনেকেই এবার নাটকের এইচডি প্রিন্ট আপলোড করার ক্ষেত্রে সচেতন হয়েছেন, সাথে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকে কপিরাইট ঝামেলা এড়ানোর যে সাজেশন দিয়েছিলাম সেটাও মেনেছেন। খুব ভালো লেগেছে ব্যাপারটা দেখে। এবারো একটু বলবো, হ্যাঁ- তাহসান ভাইয়াকে আমরা খুব ভালবাসি তাই বলে পুরা একটা ভ্যালেন্টাইন তাহসানময় করে তুললে হয়তো তাহসান ভাইয়া নিজেও টিভির সামনে যেয়ে বিরক্ত হয়ে উঠেন সে ক্ষেত্রে আমরা তো সাধারন দর্শক মাত্র। অভিনেতা- অভিনেত্রী তো অনেক তাহলে শুধু গোটা একজন-দুজন বা কয়েকজনকে নিয়ে কেন এতো টানাটানি? গান-অভিনয়-বিজ্ঞাপন সব জায়গায় সব নির্মাতাগন বার বার একই মানুষজন নিয়ে কেন কাজ করছেন আর তাতে কিছু অভিনেতা-অভিনেত্রি থেকে যাচ্ছেন একদম স্পট লাইটের বাইরে! সবাইকে নিয়ে কাজ করুন আরো ভেরিয়েশন দিন। তাতে কাজ করেও মজা পাবেন আমরা দেখেও মজা পাবো।
আমার ভাষাগত কোনো ক্রুটি বা আদব কায়দায় কোনো খারাপ লাগলে মাফ চেয়ে নিচ্ছি।মাফ করে দিবেন প্লিজ। আশা করি সামনে আরো অনেক ভালো ভালো কাজ দেখবো এবং আবার চা খেতে খেতে একদিন না হয় আলোচনায় বসবো।
ধন্যবাদ সবাইকে।

– অবয়ব সিদ্দিকী মিডি

16729365_1856748611234999_7923918907435569810_n


মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন